বালু উত্তোলনের সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে সন্ত্রাসী হামলায় ২ সাংবাদিক আহত

লক্ষ্মীপুর জেলা প্রতিনিধি :

লক্ষ্মীপুর জেলা সদরের চর রুহিতা এলাকায় অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলনের সংবাদ প্রচার করতে গেলে সন্ত্রাসীরা ২ সাংবাদিক কে উপুর্যুপরী আঘাত করে আহত করেছে।খবর নিয়ে জানা যায় লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার আওতাধীন ৪ নং চররুহিতা ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ড বাসিন্দা বালু উত্তোলনকারী সম্রাট মোহাম্মদ জুলহাস মোল্লা দীর্ঘ ৫ বছর ধরে গোপনে বালু উত্তোলন করে আসছেন।বাংলাদেশের আইনে বালু উত্তোলন কে অবৈধ ঘোষণা করে আসছে সরকার।

গত চার মাস ধরে বালু উত্তোলন করায় স্থানীয় সুত্রে তথ্য পেয়ে ঘটনাস্থলে গনমাধ্যমকর্মীরা গিয়ে বিষয়টির সত্যতা পাওয়া যায়।পরে বালু উত্তোলন করার বিষয়ে লক্ষ্মীপুর সদর এসি ল্যান্ড কে, দৈনিক গণজাগরণ পত্রিকার মুঠোফোন থেকে কল করে অবগত করা হয়।এসি ল্যান্ড ঘটনাস্থলে দুইজন সংবাদ কর্মী জাতীয় দৈনিক গণজাগরণ পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি রাকিব হোসেন সোহেল ও দৈনিক বাংলাদেশের আলো পত্রিকার প্রতিনিধি নাঈম হোসেন কে উপস্থিত থাকতে বলেন।এরই ধারাবাহিকতায় চররুহিতা ভুমি অফিসের অফিস স্টাফ শিশির দাস কে বালু উত্তোলনের স্পটে পাঠানো হয়।

শিশির দাস অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধ করে বেড়ির নিচ দিয়ে নেওয়া সংযোগের কিছু অংশ কেটে দেন।খবর পেয়ে বালু উত্তোলনকারী সন্ত্রাস বাহিনীর গডফাদার জুলহাস মোল্লা সন্ত্রাসী দল ১৫ থেকে ২০জন দিয়ে লোকজন নিয়ে দুইজন সংবাদ কর্মী কে মোটরসাইকেল অবরুদ্ধ করে বেদম প্রহার ও শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করতে থাকে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায় সংবাদ কর্মীরা আসার পথে বেড়ীর উপরে মোটরসাইকেল চলতি অবস্থায় জুলহাস মোল্লা লাথি মেরে বেড়ি থেকে সংবাদ কর্মীদের ফেলে দেয়।মানিক মিয়ার ইট ভাটার গেইট এর সামনে খালের পাশে ফেলে দিয়ে এলোপাতাড়ি দুইজন কে কিল ঘুষি মারেন জুলহাস ও তার সঙ্গীরা।দুইজন সংবাদ কর্মীর মধ্যে একজন কে গুরুত্বর আহত করে পুরুষ গোপন অঙ্গে লাথি দিয়ে অসুস্থ্য করে দেওয়া হয়।পরে হকস্টিক দ্বারা কোমরে আঘাত করে এবং কোমরের উপরে উঠে দাঁড়িয়ে বুট জুতা দ্বারা দীর্ঘক্ষণ নির্মম অত্যাচার চালায়।

কোমরের দুইটি হাড় ভেঙ্গে যায় সংবাদকর্মী রাকিব হোসেন সোহেল ও নাইম হোসেনের।সন্ত্রাসী বাহিনী জুলহাস মোল্লা সংবাদ কর্মী উপর অর্তকিত হামলা চালানোর ঘটনায় তাৎক্ষণিক ভাবে বহুবার কল করা হলেও রিসিভ করা হয়নি।
আহত ২ সংবাদ কর্মী বর্তমানে লক্ষ্মীপুর জেলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছেন।

গণমাধ্যম কর্মীরা সঠিক দায়িত্ব পালন করেছেন অথচ তাদের নিরাপত্তার বিষয়টি উপেক্ষিত কেনো জানতে চাইলে লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার এসিল্যান্ড অমিত কুমার রায় বলেন আমি তাৎক্ষণিকভাবে ভূমি কর্মকর্তা পাঠিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধ করে দিয়েছি।যেহেতু সন্ত্রাসীরা সংবাদ কর্মীদের কে আহত করেছে তাই ফৌজদারি মামলা করতে হবে।এসি ল্যান্ড বলেন মামলার সার্বিক বিষয়ে আমি খোঁজ খবর নিবো।বালু উত্তোলনের বিষয়ে লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার কেউ ছাড় পাবেনা বলে উল্লেখ করেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *