দেশের রেমিটেন্স প্রবাহ বাড়াতে কমিশনে ছাড় এবং বিকাশ সুবিধা চালু করতে হবে- প্রবাসীদের দাবী

কে এ সৌরভ খাঁন, নিজস্ব প্রতিনিধি ঃ সংযুক্ত আরব আমিরাত।

প্রবাস থেকে অনেকেই অবৈধ পথে টাকা পাঠানোর কারণে, বিপুল পরিমান বৈদেশিক মুদ্রা থেকে বঞ্চিত হয় বাংলাদেশ সরকার। প্রবাসীরা প্রবাস থেকে অবৈধ পথে টাকা পাঠানোর মুল কারন হচ্ছে। হুন্ডি,বিকাশ সহ অবৈধ পথে দ্রুত টাকা প্রাপ্তি, যাতায়াত সুবিধা এবং টাকা প্রেরণের আলাদা চার্জ থাকে না । তাই প্রবাসীদের বৈধ পথে টাকা প্রেরণে কিভাবে উৎসাহিত করা যায়? এসব বিষয় নিয়ে গতকাল আমিরাতের আজমানের স্পাইসি হাউজ রেস্টুরেন্টের হলরুমে এক মতবিনিময় সভায় সর্বস্তরের বাংলাদেশি প্রবাসীরা তাদের মতামত এবং পরামর্শ গুলো জানিয়েছেন।
প্রবাসীরা বেশি সুবিধা পায় বলে, অবৈধ পথে টাকা পাঠাতে উৎসাহি হয়। আবার অনেক সাধারণ প্রবাসীরা যাতায়াত অসুবিধা বা দ্রুততার জন্যে হুন্ডি বা বিকাশে টাকা প্রেরণ করে। চলতি বছরের জুন থেকে আগস্ট মাস পর্যন্ত ৭৫ মিলিয়ন ইউ এস ডলার রেমিটেন্স বেড়েছে। তবে আরো কিছু বিষয়ের উপর লক্ষ্য দিলে রেমিটেন্সের প্রবাহ বাড়বে। বর্তমান সরকার প্রবাসীদের পাঠানো অর্থে ২.৫ শতাংশ প্রণোদনা দিয়ে থাকলেও। প্রেরিত অর্থের উপর চার্জ কাটা হয়। যেটা বাংলাদেশের পার্শ্ববর্তী অনেক দেশে নেওয়া হয়না। সেই সাথে বিকাশকে প্রবাস থেকেও বৈধ করার দাবি প্রবাসীদের। প্রবাসীদের বৈধ পথে রেমিটেন্স পাঠাতে উংসাহিত করতে, ইতিমধ্যে ‘দুয়ারে কনস্যুলেট’ বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে। যেখানে প্রবাসীদের সমস্যা থেকে শুরু করে তা সমাধানে বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়ার চেষ্টা করে যাচ্ছে দুবাই কনস্যুলেট। মতবিনিময় সভাতে অংশ নিয়ে সাধারণ প্রবাসী থেকে শুরু করে প্রবাসী ব্যবসায়ীরা তাদের মতামত এবং পরামর্শ গুলো তুলে ধরেন।প্রবাসীরা কেন অবৈধ পথে টাকা পাঠায়? এবং কি করা গেলে রেমিটেন্স বাড়তে পারে? বিষয়গুলো নিয়ে বাংলাদেশ থেকে আসা প্রতিনিধি দল ইতিমধ্যে শ্রমিক,ব্যংকার এবং একচেন্জ হাউজের প্রতিনিধি সহ নানান পেশার মানুষের মতামত নিয়েছেন বলে জানান। বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল দুবাই ও উত্তর আমিরাত এবং বাংলাদেশ বিজন্যাস কাউন্সিল আয়োজিত এ সভায়, সাধারণ প্রবাসী এবং ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংক এবং জনতা ব্যাংকের কর্মকর্তাগণ। সংশ্লিষ্টদের প্রত্যাশা প্রবাসীদের কথা মাথায় রেখে প্রণোদনা ২.৫ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে চার শতাংশ করলে এবং সভায় উঠে আসা বিষয়গুলোর প্রতি সরকার সুনজর দিলে রেমিটেন্সের প্রবাহ বাড়বে। যা দেশের অর্থনীতিকে সমৃদ্ধি করবে। বাড়বে বৈদেশিক মুদ্রা রিজার্ভ। প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব ডঃ আহমদ মুনিরুস সালেহিন জানান সবাই যদি অবৈধ পথে টাকা প্রেরণ বন্ধ করে তাহলে বাংলাদেশে রেমিটেন্স প্রবাহ উল্ল্যেখযোগ্য ভাবে বৃদ্ধি পাবে। তাই প্রবাসীদের সুবিধা-অসুবিধাগুলো দেখে তাদের মতামত শুনতে আমরা ইউ এ ই তে এসেছি। পরবর্তীতে সৌদি আরব এবং ইতালিতেও যাবো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *