চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নাম ভাঙ্গিয়ে লিজ কৃত সম্পত্তি দখলের পাঁয়তারা অভিযোগ

মোঃ শফিক তপাদার, চাঁদপুর জেলা প্রতিনিধিঃ

চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জ উপজেলার ৬ নং গুপ্টি পশ্চিম ইউনিয়নের খাজুরিয়া বহু মুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের নিজস্ব যায়গায় বাদ দিয়ে দীর্ঘদিনে জৈনক ব্যাক্তির যায়গায় দখলের অভিযোগ উঠে আসছে।

সরজমিনে গিয়ে জানা যায়, মৃত আঃ মান্নান এর বাড়ির স্বনিকটে থাকা ৪ শতাংশ নাল ভুমি সরকারের ১/১ এর খতিয়ানে খাজুরিয়া মৌজার (৪৪) শতাংশ জমির মধ্যে ৪ শতাংশ জমির সরকারের আইন অনুযায়ী লিজ নিয়ে ভোগ দখল করে আসছেন মৃত আঃ মান্নান এর পুত্র মোঃ আলী হোসেন। লিজ কৃত ডি,সি,আর, নম্বর (১০৬১২৮), ভিপি লিজ মামলা নং (১৫৭/৬৮-৬৯)। পাকিস্তান সরকারের আমল থেকে আলী হোসেন পিতা মৃত আঃ মান্নান লিজ কৃত ঔ ৪ শতাংশ জমি ভোগ দখল করে আসছেন। তার মৃত্যুর পর ছেলে আলী হোসেন সরকারের নিয়ম অনুযায়ী খাজনা দিয়ে লিজের মাধ্যমে ভোগ দখল করে আসছে।

এরি মধ্যে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ শওকত হোসেন, সহকারী প্রধান শিক্ষক মোঃ শাহজাহান ও সহকারী শিক্ষক মোঃ মজিবুর রহমান কতিপয় ভুমি দস্যুদের উসকানিতে বিদ্যালয়ের নাম ভাঙ্গিয়ে জোরপূর্বক দখলের পাঁয়তারা করে আসছে। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, পাশের ৮ নং ইউনিয়নের পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শওকত হোসেন।

সহকারী শিক্ষক ও ৬ নং গুপ্টি পশ্চিম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ মজিবুর রহমান। তার প্রভাব খাটিয়ে আলী হোসেন দখল কৃত সম্পত্তিটি জোরপূর্বক দখলের অভিযোগ রয়েছে।

এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ শওকত হোসেনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, উক্ত বিদ্যালের গেইট থেকে ডানে – বামে সকল সম্পতি আমাদের। বিদ্যালয়ের নামে দলিল কৃত জমির পরিমান জানতে চাইলে কোন রকম উত্তর না দিয়ে বলেন আমি তিন কথার বেশি কথা বলি না। আপনারা যা লেখার লিখে যান।তার পরে তিনি বলেন আমি দীর্ঘদিন যাবত ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের সভাপতি পদে রয়েছি এবং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান যা করার আমি করবো। আমি আপনাদের সাথে তিন কথার বেশি বলতে পারবেনা।

বিদ্যালয়ের সভাপতি ডাঃ মোঃ আবদুর রাজ্জাক বলেন, বিদ্যালয়ের দলিল কৃত সম্পত্তি বাহিরে যাবোনা। জোরপূর্বক দখলের পাঁয়তারা বিষয়টি আমার জানা নাই।

ফরিদগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ আলী আশরাফে সাথে মুঠোফোনে কথা বলে যানা যায়, আমি এ বিষয়ে কিছু জানি না।
অভিযোগ পেলে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

৬ নং গুপ্টি পশ্চিম ইউনিয়ন ভুমি সহকারী কর্মকর্তা মোঃ নজরুল ইসলাম জানান, বিদ্যালয়ের দলিল কৃত মোট সম্পওি (১৭৮) শতাংশ যার খতিয়ান নং হচ্ছে, (০৫) দাগ নম্বর হচ্ছে (৩৭১)। আলী হোসেন লিজ কৃত সম্পত্তির ৪ শতাংশ যার খতিয়ান নং (১/১) দাগ নম্বর
(৩৭১)। বিদ্যালয়ের দলিল কৃত সম্পত্তির বাহিরে যাওয়ার কোন সুযোগ নেই।
তিনি আরো জানান আলী হোসেন পিতা নামে দীর্ঘদিন যাবত লিজ কৃত সম্পত্তি ভোগ দখল করে আসছেন। সরকারি নিয়মে তার পিতার মৃত্যুর পর আলী হোসেন সরকারের খাজনা দিয়ে লিজ নিয়ে সম্পত্তি ভোগ দখল করে আসছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *