লক্ষ্মীপুরে আইনজীবীর মারধরে কলেজছাত্রী হাসপাতালে

লক্ষ্মীপুর জেলা প্রতিনিধি :

লক্ষ্মীপুরে বাড়ির রাস্তা বন্ধের পাঁয়তারার প্রতিবাদ করায় উম্মে হালিমা ফাইসা (২০) নামে এক কলেজ পড়ুয়া ছাত্রীসহ ৪ নারীকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে। লক্ষ্মীপুর জেলা ও দায়রা জজ আদালতের আইনজীবী শরাফ উদ্দিন চিশতির বিরুদ্ধে এ অভিযোগ করা হয়।

বৃহস্পতিবার (১ সেপ্টেম্বর) বিকেলে কলেজছাত্রীর মা চরচামিতা অজিফা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা রৌশন আরা বেগমসহ ভূক্তভোগীরা এ অভিযোগ করেছেন।

এর আগে বুধবার (৩১ আগস্ট) সন্ধ্যায় লক্ষ্মীপুর শহর পুলিশ ফাঁড়ি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। আহত হালিমা লক্ষ্মীপুর সরকারি কলজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্রী ও পৌরসভার ব্যবসায়ী মফিজুল ইসলামের মেয়ে।

আহত অন্যরা হলেন স্কুল শিক্ষিকা রৌশন আরা বেগম, স্থানীয় বাসিন্দা রেহানা বেগম ও রোশন বেগম।

স্থানীয় সূত্র জানায়, লক্ষ্মীপুর শহর পুলিশ ফাঁড়ি এলাকায় হাসান বানু সড়কে অর্ধশতাধিক পরিবার বসবাস করেন। দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে ওই সড়কটি সবাই ব্যবহার করে আসছে। ২০১২ সালে লক্ষ্মীপুর পৌরসভা থেকে সড়কটি ইটের সলিং করে দেওয়া হয়। সম্প্রতি রাস্তার প্রবেশমুখে আইনজীবী শরাফ উদ্দিনরা নিজেদের জমি দাবি করে একটি গেট নির্মাণের উদ্যোগ নেয়। এতে সড়কের অন্যান্য বাসিন্দারা বাধা দেয়। তখন আইনজীবীর লোকজন স্কুল শিক্ষিকা রৌশন আরাসহ কয়েকজনের ওপর হামলা করে। খবর পেয়ে পৌরসভার মেয়র ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এরপরেও গেট নির্মাণের জন্য দুটি আরসিসি খুটি নির্মাণ করে আইনজীবী।

এদিকে বুধবার সন্ধ্যায় ওই খুঁটিগুলো ভেঙে ফেলার চেষ্টা চালায় ভূক্তভোগীরা। এসময় আইনজীবী শরাফ উদ্দিন ও তার ভাই শাহেদ এসে তাদের ওপর হামলা করে। এতে কলেজছাত্রীসহ ৪ নারী আহত হয়। কলেজছাত্রীকে হাসপাতালে ভর্তি ও অন্যদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

স্কুল শিক্ষিকা রৌশন আরা বেগম বলেন, প্রায় ২৫ বছর ধরে আমরা রাস্তাটি ব্যবহার করছি। হঠাৎ আইনজীবী আবু তৈয়ব ও তার ছেলে শরাফ উদ্দিন চিশতি গেট নির্মাণের জন্য দুটি খুঁটি নির্মাণ করে। এতে বাধা দিলে শরাফ উদ্দিন লোকজন নিয়ে এসে আমার মেয়েকে এলোপাতাড়ি কিলঘুষি আহত করে। পরে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পুলিশের সামনেও শরাফ উদ্দিন আমার মেয়েকে থাপ্পড় মেরেছে।

প্রিন্সিপাল কাজী ফারুকী কলেজের প্রভাষক আহমেদ কাওছার বিন জামান বলেন, ২০ বছর আগে আমরা এখানে বাড়ি নির্মাণ করি। এখানে অর্ধশতাধিক পরিবার বসবাস করে। সবাই এ রাস্তাটি দীর্ঘ বছর ব্যবহার করে আসছেন। কয়েকবছর আগে রাস্তাটি পৌরসভা থেকে সলিং করে দেওয়া হয়। এখন নিজদের জমি দাবি করে আইনজীবী তৈয়ব ও তার ছেলে শরাফ উদ্দিন গেট নির্মাণ করে রাস্তাটি বন্ধের পাঁয়তারা করছেন।

আইনজীবী শরাফ উদ্দিন চিশতি বলেন, আমার বাড়ির দরজার গেটের খুঁটি তারা কাটার দিয়ে কাটছিল। এতে বাধা দেওয়ায় তারা আমার ওপর হামলা করে। আমি হালিমাকে মারধর করিনি। ঘটনা অন্যদিকে প্রভাবিত করতেই তারা হালিমাকে হাসপাতালে ভর্তি করে নাটক করছে।

লক্ষ্মীপুর শহর পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক (তদন্ত) জহিরুল আলম বলেন, চিৎকার চেচামেচি শুনে ঘটনাস্থল গিয়ে উভয়পক্ষকে শান্ত করি। ঘটনাটি নিয়ে উভয়পক্ষকে ডাকা হয়েছে। তবে এ ঘটনায় কেউ এখনো কোন অভিযোগ দেয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *