লক্ষ্মীপুরের মেঘনার উপকূল প্রতিদিন ডুবছে

স্টাফ রিপোর্টার :

লক্ষ্মীপুরের মেঘনা নদী সংলগ্ন কমলনগর উপজেলা এবং রামগতি উপজেলার উপকূলীয় এলাকা জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়েছে। এছাড়া রায়পুর উপজেলা ও সদর উপজেলাসহ জেলার মোট ১৫টি ইউনিয়নের বিস্তীর্ণ এলাকায় জোয়ারের পানি উঠে গেছে। গত বুধবার থেকে প্রতিদিন জোয়ারের পানি উপকূলে উঠতে শুরু করে।

তিন থেকে চার ঘণ্টা পানি স্থায়িত্ত হয়ে আবার নেমে যায় পানি। তবে এই তিন থেকে চার ঘন্টার পানিতে উপকূলে ব্যাপক ক্ষতি হয়। তীব্র আকার ধারণ করে নদীর ভাঙন। প্রতি বর্ষা মৌসুমের অমাবস্যা এবং পূর্ণিমার জোয়ারে মেঘনা নদীতে পানি বেড়ে গেলে উপকূলীয় এলাকাগুলো প্লাবিত হয় বলে জানান স্থানীয় লোকজন।

স্থানীয় লোকজন বলেন, মেঘনা নদীর পূর্ব তীরে বেড়িবাঁধ না থাকায় কমলনগর উপজেলার ছয়টি, রামগতি উপজেলার তিনটি, সদর উপজেলার চররমনী মোহন এবং রায়পুর উপজেলার দক্ষিণ চরবংশী ও উত্তর চরবংশী ইউনিয়ন অরক্ষিত হয়ে আছে। এছাড়া রামগতি উপজেলার বিচ্ছিন্ন দ্বীপ চর আবদুল্লাহ ইউনিয়ন জোয়ারের পানিতে পুরোপুরি ডুবে থাকে।

উপকূলীয় এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, জোয়ারের পানিতে বিস্তীর্ণ ফসলি জমি তলিয়ে গেছে এবং বসতবাড়ির উঠানে পানি উঠে গেছে। কারো কারো ঘরে আবার পানি উঠেছে। এতে ফসলের ক্ষতিসহ দুর্ভোগে পড়েছেন বাসিন্দারা।

এছাড়া জোয়ারের পানি ওঠা এবং নামার সঙ্গে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে কাঁচা এবং পাকা সড়ক। কারো কারো পুকুরে পানি ঢুকে চাষকৃত মাছ ভেসে যায়। তাই কমলনগর এবং রামগতি উপজেলার বাসিন্দারা দ্রুত নদী তীররক্ষা বাঁধ নির্মাণের দাবি জানালেও বাঁধ নির্মাণ কাজে ধীরগতি দেখা গেছে।

উপকূলের বাসিন্দারা বলেন, বুধবারের জোয়ারের পানির চেয়ে বৃহস্পতিবার সৃষ্ট জোয়ারের পানির পরিমাণ বেশি ছিল। ফলে বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত হওয়াসহ উঠান ও বসতঘরে পানি ওঠেছে।

তাদের অভিযোগ, বাঁধ নির্মাণ না হওয়ায় জেলার রামগতি ও কমলনগর উপজেলার মেঘনা তীরবর্তী অন্তত নয়টি ইউনিয়ন অরক্ষিত অবস্থায় আছে। বাঁধ নির্মাণের কাজে ধীরগতি হওয়ায় বার বার তাদের জোয়ারের পানিতে ডুবতে হচ্ছে। এতে নদী ভাঙনসহ ব্যাপক ক্ষতির শিকার হতে হচ্ছে উপকূলীয় বাসিন্দাদের। দ্রুত বাঁধ নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করার দাবি তাদের।

কমলনগর উপজেলার চারমার্টিন এলাকার বাসিন্দা এনামুল হক বলেন, জোয়ারের পানিতে আমার পুকুরের মাছ ভেসে গেছে। একই এলাকার আমির হোসেন বলেন, জোয়ারের পানি আমার চায়ের দোকানে ঢুকে পড়েছে।

আমেনা বেগম ও পলি আক্তারসহ কয়েক জন নারী জানান, প্রতি অমাবস্যা এবং পূর্ণিমার জোয়ারে তাদের বসত ঘরে পানি ঢুকে পড়ে। এতে শিশু সন্তান নিয়ে চরম দুর্ভোগের মধ্যে পড়তে হয় তাদের।

লক্ষ্মীপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী ফারুক আহমেদ বলেন, প্রতি অমাবস্যা এবং পূর্ণিমার জোয়ারে নদীতে স্বাভাবিকের চেয়ে দুই থেকে আড়াই ফুট পানি বৃদ্ধি পায়। এর সঙ্গে সাগরে যদি কোনো সংকেত থাকে, তাহলে পানি আরও বেশি বাড়তে থাকবে। এখন পূর্ণিমা এবং বঙ্গোপসাগরে প্রকৃতিক দুর্যোগের সংকেত থাকায় জোয়ারের অতিরিক্ত পানি উপকূলে উঠেছে। আগামী ১৫ তারিখ পর্যন্ত এ অবস্থা থাকবে। ভরা পূর্ণিমার দিন পানি আরও বাড়বে বলে জানান তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *